Lecture by Juhani Pallasmaa

Juhani Pallasmaa started off his talk with the thought that architecture is a choreography of life. He says that there is interaction and resonance of life within architecture.  There is no perception without interaction. Perceptions have a distinct imaginative component. Architects have failed to understand atmospheres in our consciousness and imaginations.

He says that architecture is a combination of two realms – one which is a physical matter of execution and the other which is of mental imagery. According to him, buildings are products of execution of the mental imagery.

Pallasmaa categorized imagination into two quantitative types:

The formal imagination which is primarily engaged with topological facts

The empathetic imagination which evokes multisensory, integrated, and lived experiences of and in this very flesh. That’s how architecture works, in this imaginary, lived world.

ইউহানি পালাসমার মতে স্থাপত্য জীবনের কোরিওগ্রাফি । কিভাবে জ্যমিতিক বিন্যাসের মধ্যে জীবনের বিস্তৃতি  ঘটে তা নিয়ে বলেছেন। তার বিশ্বাস স্থপতিরা পরোক্ষ ভাবে মানুষের মস্তিষ্ক ও অনুভুতি নিয়ে কাজ করে। বিজ্ঞানীরদের মতে পরিবেশ ও পারিপার্শ্বিকতা আমাদের ব্যবহারে ভীষনভাবে প্রভাব ফেলে। তিনি তার কাজে পিথাগোরাসের অনুপাত অনুসরনের মথা বলেছেন।

স্থাপত্যের স্পেস কেবল মাত্র নির্দিষ্ট কাজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, তা কোন না কোন ভাবে অনুভুতি ও নিউরনের সাথে যুক্ত। তার মতে স্থপতিরা এই অনুভূতি বোঝার চেষ্টা করেনা।যে কোন দালানকোঠা হল প্রথমত মানুষের কল্পনা ।

স্থাপত্যের মধ্যে দুই ধরনের কল্পনার কথা উল্লেখ করেন। এক ধরনের কল্পনা জ্যামিতিক বা আকার আকৃতি নিয়ে, আরেক ধরনের কল্পনা মানুষের অনুভূতি ও অভিজ্ঞতা নিয়ে।

Compiled by: Tazrin Ahmed and Farhana Rashid

5xi_7928 5xi_8087 5xi_8185 5xi_80625xi_8127 5xi_8189

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.