UPDATES

Doshi/Pallasmaa: Two Talks and a Conversation – Post Event Press Release

DOSHI/PALLASMAA
TWO TALKS AND A CONVERSATION
15th November, Tuesday, Krishibid Institution Bangladesh

Organized by: Bengal Institute for Architecture, Landscapes and Settlement and Bengal Foundation.

Videos:

Event website: http://symposiums.bengal.institute
Facebook Event Page: https://www.facebook.com/events/1269322606453046
Graphics: Digital banners | Event Poster | Image resources
Selected Photos: Download.
Audio recordings: Download.

The second Bengal Architecture Symposium was organized by Bengal Institute for Architecture, Landscapes and Settlements and Bengal Foundation to honour the works and philosophy of two renowned architects, Balkrishna Doshi and Juhani Pallasmaa. The event took place at Krishibid Institution, Bangladesh (KIB) Auditorium on 15th November, Tuesday, 2016. Over 1000 people were in the audience, which included architecture students, professionals, academics and more.

The first talk was a lecture by master Indian architect, Balkrishna Doshi, where he first expressed his gratitude and experience of visiting Dhaka. He commented on the similarity in vitality and energy between India and Bangladesh. He talked about his journey of negating, pursuing, understanding or analyzing architecture. He mentioned that he learnt the craft of architecture from Le Corbusier and Louis Kahn.


He also talked about the diversity of life in India and the need for recognizing it. He says it is important to acknowledge this diversity even in architecture.

He mentioned the role of architecture with respect to social reconstruction. According to him, architecture must bridge the gap between communities and act as a connection between its people. In accordance to that, the role of an architect must be similar to that of a social activist. He believes an architect must create transformation, change and awareness. In short, the architect must be an active member of society.

Doshi also discussed some of his projects, namely the Indian Institute of Management in Bangalore, Kanoria Center for Arts in Kolkata and Sangath in Ahmedabad.

After a short break, the second talk began which was by renowned Finnish architect and thinker, Juhani Pallasmaa. He started off his talk with the thought that architecture is a choreography of life. He says that there is interaction and resonance of life within architecture. Perceptions have a distinct imaginative component. Architects have failed to understand atmospheres in our consciousness and imaginations.

Pallasmaa categorized imagination into two quantitative types: the formal imagination which is primarily engaged with topological facts; and the empathetic imagination which evokes multisensory, integrated, and lived experiences of flesh.

According to him, artistic works are not symbols or metaphors of something else, they are authentic realities. All art exist in two realms simultaneously – one of physical matter and execution and another of mental imagery. He believes that even the art of poetry is engaged with the material world and the body.

The two talks were followed by a discussion which was moderated by Kazi Khaleed Ashraf.
Here, the topic of discussion was interpretational/methodological process, in relation to the purpose of drawing. The architects discuss the challenges and distinction between use of charcoal vs computational method. Pallasmaa said that drawing is the process of bringing imagination to life. He said that today’s way of life makes use of technology in a way that leads to loss of knowledge on environment.

Balkrishna Doshi mentioned that the nature and imagery of Dhaka city has disappeared from our minds. He said that we do not know what to prioritize in life and thus the city is losing its natural assets. Afterwards, both the architects answered questions from the audience members and the event drew to a close with the two guests thanking Bengal Institute for inviting them.

বেঙ্গল ফাউন্ডেশন  এবং বেঙ্গল ইন্সটিটিউটের উদ্যোগে বিশিষ্ট ভারতীয় স্থপতি বালকৃষ্ণ দোশী ও  ফিনিশ স্থপতি ইউহানী পালাজমার কথোপথোন নিয়ে আয়োজিত হল দ্বিতীয় স্থাপত্য সেমিনার। অনুষ্ঠানটি আয়োজন করা হয় কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশের অডিটোরিয়ামে যেখানে অংশগ্রহণ করেন এক হাজারেরও বেশি দর্শক। বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক লুভা নাহিদ চৌধুরীর বক্তব্য দিয়ে অনুষ্ঠানের শুরু হয়।

প্রথমে বক্তা ছিলেন বিশিষ্ট ভারতীয় স্থপতি বালকৃষ্ণ দোশি। নদী কীভাবে ভূমিবিন্যাস-এর  সাথে মিলে যায়, তার গতিপথ, তার অনুভুতির কথা উল্লেখ করে তিনি মানুষের  মনের জিজ্ঞাসার কথা বলেন।  “আমি কি, আমি কি করছি?” – স্থাপত্যচর্চা করতে হলেও এই প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়। তিনি লি কর্বুজিয়ারের সাথে কাজ করতে গিয়ে তার অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে কিভাবে স্থাপত্য শিক্ষা লাভ করেছেন তার বর্ণনা তুলে ধরেন। তিনি তার ব্যক্তিগত স্থাপত্য চর্চার পথাচলার নানা বিষয় তুলে ধরেন।

স্থাপত্য কেমন হতে পারে সে ব্যাপারে বলতে গিয়ে  তিনি বাসস্থানের ব্যাপারে মানুষের আরাম, জায়গার ব্যবহার, আলো বাতাসের চলাচলের কথা বলেন। তার মতে স্থান হলো প্রাণবন্ত ব্যাপার। তার মতে, এক জায়গাকে নানাবিধ ব্যবহারের মাধ্যমে সেটাকে আরো অর্থবহ করে তোলা যায়। সেই সাথে প্রকৃতির সাথে যোগাযোগের কথাও বলেন দোশি।

 

চরকার উল্লেখ করে তিনি বলেন স্থাপত্য চর্চাকে দৈনন্দিন জীবনের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হওয়ার কথা বলেন। সমাজে স্থপতির ভূমিকা উল্লেখ্য করতে গিয়ে তিনি সমাজের ছোট, বড় নানা পর্যায়ে, গৃহহীন থেকে শুরু করে নানা পেশা আয়ের মানুষের জন্য কাজ করার কথা বলেন । তিনি স্থাপত্যকে জৈবিক বিন্যাসের সাথে তুলনা করেন। স্থপতির কাজ কেবল দালান নকশার মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে সমাজের বিন্যাস ও পুনর্বিন্যাসেও ভুমিকা রাখতে পারে।

দ্বিতীয় বক্তা ছিলেন ফিনিশ স্থপতি ও লেখক  ইউহানী পালাজমা, যিনি প্রথমেই বলেন যে তিনি নিজেকে স্থাপত্যের তত্ত্ববিদ হিসেবে দাবি করতে চাননা। তার মতে, স্থাপত্য জীবনের নৃত্য পরিকল্পনা। তিনি কিভাবে জ্যমিতিক বিন্যাসের মধ্যে জীবনের বিস্তৃতি ঘটে তা নিয়ে বলেছেন। তার বিশ্বাস, স্থপতিরা পরোক্ষ ভাবে মানুষের মস্তিষ্ক ও অনুভুতি নিয়ে কাজ করে।

বিজ্ঞানীদের মতে পরিবেশ ও পারিপার্শ্বিকতা আমাদের ব্যবহারে ভীষনভাবে প্রভাব ফেলে। পালাজমা মনে করেন, স্থাপত্যের স্থান কেবল মাত্র নির্দিষ্ট কাজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, তা কোন না কোন ভাবে অনুভুতি ও নিউরনের সাথে যুক্ত। তার মতে, স্থপতিরা এই অনুভূতি বোঝার চেষ্টা করেনা। এখানে তিনি  দুই ধরনের কল্পনার কথা উল্লেখ করেন। এক ধরনের কল্পনা জ্যামিতিক বা আকার আকৃতি নিয়ে, আরেক ধরনের কল্পনা মানুষের অনুভূতি ও অভিজ্ঞতা নিয়ে।

সিম্পোজিয়ামের শেষ অংশে ছিল আলোচনা পর্ব। এতে কাজী খালিদ আশরাফ, ইউহানী পালাজমা ও বালকৃষ্ণ দোসী অংশ নেন। আলোচনা পর্বের একটি মূল বিষয় ছিল সৃজনশীল কল্পনায় কম্পিউটার ও হাতে আঁকার চিত্রের ব্যবহার নিয়ে। দোশি বলেন যে আমরা মানুষের মুহুর্তের কথা ভাবিনা এবং বর্তমান নগরে যানবাহন মানুষের অনুভূতির চেয়ে বেশী জরূরী হয়ে উঠছে। তিনজন স্থপতি আরো আলোচনা করেন নগর পরিকল্পনা এবং নগর গঠনে স্থপতির ভূমিকা নিয়ে।  

——–

Written and compiled by: Tazrin Ahmed, Farhana Rashid, Farhat Afzal

Photo by: Afzalur Rahman Xelon

Doshi and Pallasmaa: A conversation

The end of the talks by Doshi and Pallasmaa was followed by a conversation which was moderated by Kazi Khaleed Ashraf.

In this conversation, the topic of discussion was interpretational/methodological process, in relation to the purpose of drawing. The architects discuss the challenges and distinction between use of charcoal vs computational method. Juhani Pallasmaa said that drawing is the process of bringing imagination to life. He said that today’s way of life makes use of technology in a way that leads to loss of knowledge on environment.

Balkrishna Doshi mentioned that the nature and imagery of Dhaka city has disappeared from our minds. He said that we do not know what to prioritize in life and thus the city is losing its natural assets. He also reminisced about his experience of being in the Parliament House and shared his days of working in Louis Kahn’s office when the plans for the building were being developed.

সিম্পোজিয়ামের শেষ অংশে ছিল আলোচনা পর্ব। এতে কাজী খালিদ আশরাফ, ইউহানী পালাজমা ও বাল কৃষ্ণ দোসী  অংশ নেন।

Compiled by: Tazrin Ahmed and Farhana Rashid

 

5xi_8391 5xi_8417 5xi_8440 5xi_8311 5xi_8360-001

Lecture by Juhani Pallasmaa

Juhani Pallasmaa started off his talk with the thought that architecture is a choreography of life. He says that there is interaction and resonance of life within architecture.  There is no perception without interaction. Perceptions have a distinct imaginative component. Architects have failed to understand atmospheres in our consciousness and imaginations.

He says that architecture is a combination of two realms – one which is a physical matter of execution and the other which is of mental imagery. According to him, buildings are products of execution of the mental imagery.

Pallasmaa categorized imagination into two quantitative types:

The formal imagination which is primarily engaged with topological facts

The empathetic imagination which evokes multisensory, integrated, and lived experiences of and in this very flesh. That’s how architecture works, in this imaginary, lived world.

ইউহানি পালাসমার মতে স্থাপত্য জীবনের কোরিওগ্রাফি । কিভাবে জ্যমিতিক বিন্যাসের মধ্যে জীবনের বিস্তৃতি  ঘটে তা নিয়ে বলেছেন। তার বিশ্বাস স্থপতিরা পরোক্ষ ভাবে মানুষের মস্তিষ্ক ও অনুভুতি নিয়ে কাজ করে। বিজ্ঞানীরদের মতে পরিবেশ ও পারিপার্শ্বিকতা আমাদের ব্যবহারে ভীষনভাবে প্রভাব ফেলে। তিনি তার কাজে পিথাগোরাসের অনুপাত অনুসরনের মথা বলেছেন।

স্থাপত্যের স্পেস কেবল মাত্র নির্দিষ্ট কাজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, তা কোন না কোন ভাবে অনুভুতি ও নিউরনের সাথে যুক্ত। তার মতে স্থপতিরা এই অনুভূতি বোঝার চেষ্টা করেনা।যে কোন দালানকোঠা হল প্রথমত মানুষের কল্পনা ।

স্থাপত্যের মধ্যে দুই ধরনের কল্পনার কথা উল্লেখ করেন। এক ধরনের কল্পনা জ্যামিতিক বা আকার আকৃতি নিয়ে, আরেক ধরনের কল্পনা মানুষের অনুভূতি ও অভিজ্ঞতা নিয়ে।

Compiled by: Tazrin Ahmed and Farhana Rashid

5xi_7928 5xi_8087 5xi_8185 5xi_80625xi_8127 5xi_8189

Lecture by Balkrishna Doshi

Balkrishna Vithaldas Doshi began by talking about his experience of travelling all over the city of Dhaka and discovering its elements. He commented on the similarity in vitality and energy between India and Bangladesh.

He mentioned the similarity between a human life and a river by saying that learning and growing is like a flowing river. Identity of life can be compared to a river’s identity.

He talked about his journey of negating, pursuing, understanding or analyzing architecture. He mentions the names of Le Corbusier and Louis I. Kahn, referring to the fact that he learnt the craft of architecture from them.

He also talked about the diversity of life in India and the need for recognizing it. He says it is important to acknowledge this diversity even in architecture.

Architecture is a design of a total environment where the whole system becomes a living one, which must not have a finite line. It should have diverse proportions according to its need. That is what Balkrishna Doshi tries to achieve in his practice.

নদী কীভাবে ভূবিন্যাসের সাথে মিলে যায়, তার গতিপথ, তার অনুভুতির উল্লেখ করে, বিশিষ্ট ভারতীয় স্থপতি বাল কৃষ্ণ দোশী মানুষের  মনের অন্তর জিজ্ঞাসার কথা বলেন , “ আমি কি, আমি কি করছি?” স্থাপত্যচর্চা করতে হলেও এই প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়। তিনি লি কর্বুজিয়ারের সাথে কাজ করতে গিয়ে তার অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে কিভাবে স্থাপত্য শিক্ষা লাভ করেছেন তার বর্ণনা তুলে ধরেন।

স্থাপত্য কেমন হতে পারে সে ব্যাপারে বলতে গিয়ে  তিনি বাসস্থানের ব্যাপারে মানুষের আরাম, জায়গার ব্যবহার, আলো বাতাসের চলাচলের কথা বলেন। এক জায়গাকে নানাবিধ ব্যবহারের মাধ্যমে জায়গাকে আরো অর্থবহ করে তোলা যায়। সেই সাথে প্রকৃতির থাকে যোগাযোগের কথা বলেন।

চরকার উল্লেখ করে তিনি বলেন স্থাপত্য চর্চাকে দৈনন্দিন জীবনের সাথে সঙ্গতিপূর্ন হওয়ার কথা বলেন। সমাজে স্থপতির ভূমিকা উল্লখে করতে গিয়ে তিনি সমাজের ছোট বড় নানা পর্যায়ে গৃহহীন থেকে শুরু করে নানা পেশা আয়ের মানুষের জন্য কাজ করার কথা বলেন । তিনি স্থাপত্যকে বায়লজিকাল অর্ডারের সাথে তুলনা করেন। স্থপতির কাজ কেবল দালান নকশার মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে সামজের পুনর্বিন্যাসেও ভুমিকা রাখতে পারে।

Compiled by: Tazrin Ahmed and Farhana Rashid

5xi_7686 5xi_7282 5xi_7344-001 5xi_7421 5xi_7591 5xi_7644